বাংলাদেশ ও লাওসের কাছে জে-১০ জঙ্গি বিমান কেনার প্রস্তাব দিচ্ছে চীন

0
905

ফোর্সেস নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশ ও লাওসের কাছে জে-১০ জঙ্গি বিমান কেনার প্রস্তাব দিচ্ছে চীন। রাশিয়ান ট্রেনিং/হালকা জঙ্গি বিমান ইয়াক-৩০ কেনার ব্যাপারে চিন্তা-ভাবনা করছিল এই দেশ দুটি। সেখান থেকে সরিয়ে নিয়ে দেশ দুটির কাছে নিজেদের বিমান বিক্রির চেষ্টা করছে চীন।

চীন পাকিস্তানকেও জে-১০ বিমানের ব্যাপারে আগ্রহী করার চেষ্টা করছে। বেশ কিছু ছবিও দেখা গেছে, যেখানে জে-১০ জঙ্গি বিমানের ককপিটে পাকিস্তানের সামরিক নেতৃবৃন্দকে বসা অবস্থায় দেখা গেছে। কিন্তু এরপরও জে-১০ কেনার ব্যাপারে সামান্যই আগ্রহ দেখিয়েছে ইসলামাবাদ।

লাওস যখন ইয়াকোভলেভ ইয়াক-১৩০ বিমান ক্রয় করে, তখন ধারণা করা হয়েছিল যে, এটাই হবে তাদের বহরের প্রাথমিক বিমান। তবে, মনে হচ্ছে ইয়াকোভলেভ ইয়াক-১৩০ বিমান কেনাটা ছিল আরও বিমান কেনার প্রস্তুতি মাত্র। এখন দেশটি চীনের জে-১০সি বিমান কিনতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। লাওসের পশ্চিমে রয়েছে থাইল্যান্ড এবং পূর্বে রয়েছে ভিয়েতনাম। থাইল্যান্ডের বিমান বাহিনীর বহরে এ মুহূর্তে মার্কিন এফ-১৬ জঙ্গি বিমান এবং সুইডিশ জেএএস ৩৯ গ্রিপেন জঙ্গি বিমান রয়েছে। অন্যদিকে ভিয়েতনামের বিমান বাহিনীতে রয়েছে রাশিয়ার সু-২৭ এবং সু-৩০ জঙ্গি বিমান এবং তারা অত্যাধুনিক সু-৫৭ কেনারও চিন্তাভাবনা করছে বলে জানা গেছে। রয়্যাল লাও বিমান বাহিনীর প্রধান কমব্যাট বিমান হলো মিগ-২১। প্রতিবেশী দেশগুলোর বিমান শক্তির বিষয়টি বিবেচনা করে লাওস তাই জে-১০ চতুর্থ প্রজন্মের বিমান কেনার কথা ভাবছে।

ভারত যে ৩৬টি রাফায়েল জঙ্গি বিমান কিনছে, এর মধ্যে দুটি বাংলাদেশ সীমান্তে মোতায়েন করা হবে। সে কারণে চীন বাংলাদেশের কাছে জে-১০ বিক্রির কথা ভাবছে, কারণ বাংলাদেশের অন্য কোন দেশের দিক থেকে শক্ত সমর্থন নেই। ২০১৮ সালে বাংলাদেশ বিমান বাহিনী জে-১০সি বিমানের পারফর্মনেস পর্যবেক্ষণের জন্য একটি প্রতিনিধি দল পাঠিয়েছিল, যেটা থেকে বোঝা যায় যে তাদের এই বিমান কেনার ইচ্ছা রয়েছে।

লাওস ও বাংলাদেশ যদি চীনের জে-১০ জঙ্গি বিমান কেনার চুক্তি করেও ফেলে, তবু সেটা হবে মাত্র এক বা দুই স্কোয়াড্রন। কারণ দেশ দুটির বিমান বাহিনীর আকার ছোট। তাছাড়া দেশ দুটির জন্য নিজস্ব বিমান মেরামতের ফ্যাসিলিটি নির্মাণের সম্ভাবনাও কম। এরপরও এই দুই দেশের জে-১০ জঙ্গি বিমান কেনার বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ, কারণ চীন এখানে মূল্য ও প্রযুক্তির ব্যাপারে কিছু সুবিধা দিতে পারবে। এই দুই দেশে জে-১০ বিমানের পারফর্মেন্সের ব্যাপারটি চীনের জন্য গুরুত্বপূর্ণ কারণ এতে করে পাকিস্তানে রফতানির সুযোগটি আরও সহজ হয়ে যাবে। ডিফেন্স ওয়াল্ড.নেট